YouTube এ ভিডিও ভাইরাল করতে চান? ভিডিও ভাইরাল করতে হলে যে সেটিং গুলো অবশ্যই করে নিতে হবে

Hello Brother. স্বাগতম জানাই আপনাকে আমাদের টেক রিলেটেড সাইটে। তো আজকের এই টপিকে আমরা আলোচনা করব কিভাবে আপনারা YouTube এ ভিডিও ভাইরাল করতে পারবেন। আমরা কিন্তু অনেকেই YouTube এ কাজ করি এবং অনেকেই YouTube এ ভিডিও আপলোড করি। কিন্তু প্রবলেম টা হলো YouTube এ আমাদের কোনো ভিডিওতেই ভালো পরিমাণ Views হয়না বা Viral হয়না। এটা হলো আমাদের মেইন কমন একটা সমস্যা। তো আজকের এই টপিকে এই সমস্যা টা নিয়ে পুরো আলোচনা করা হবে। তো পুরো পোস্ট আপনারা মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন।

YouTube এ ভিডিও ভাইরাল করতে চান,ভিডিও ভাইরাল করতে হলে যে সেটিং গুলো অবশ্যই করে নিতে হবে,ভিডিও ভাইরাল করতে চাই,How to viral on youtube,Video Viral করুন,3 important setting for YouTube,ভিডিও তে views নাই,Youtube এ ভিডিও Viral,Get more views on youtube,YouTube এর গুরুত্বপূর্ণ ৩ টা সেটিং দেখে নিন,YouTube এ নতুন কাজ করতেছেন,need more subscriber


তো যাই হোক আজকের বিষয় বস্তুটা একটু খুলে বলি, সেটা হলো আজকে আমরা ছোট্ট একটা সেটিং Change বা পরিবর্তন করে ভিডিও ভাইরাল করা যায় তা বলব। মানে শুধুমাত্র আপনার চ্যানেলের একটা সেটিং পরিবর্তন করে আপনার প্রতিটি ভিডিও তে আগের চেয়ে ভালো পরিমাণ ভিউস নিয়ে আসতে পারেন। এছাড়া আগের থেকে ভালো পরিমাণ Subscriber Gain করতে পারবেন। তো শুনে মনে হয় আপনাদের কাছে বিষয় টা অনেক Interesting মনে হচ্ছে? হ্যাঁ এট এটা আসলেই একটা Interesting একটা বিষয়। তো আপনারা যদি পুরো পোস্ট টা পড়েন তাহলে বুঝতে পারবেন এই সেটিং গুলো কতটা গুরুত্বপূর্ণ এবং সেটিং গুলো না করলে কি ধরনের ক্ষতি হতে পারে। আমি আরও একটা বিষয় Clear করি সেটা হলো আজকের এই পোস্ট টা কিন্তু পুরনো YouTuber দের জন্য That Means আবার এমন টা ভাইবেন না, যে আপনি YouTube এ নতুন কাজ করতেছেন বা আপনার চ্যানেলে ৫০০০ কিংবা অধিক Subscriber আছে "আপনি পুরাতন YouTuber না".



আপনার চ্যানেলে যদি ১ লাখ Subscriber ও থাকে তাও কিন্তু আপনি পুরনো ইউটুবার না। আমি শুধুমাত্র তাদের কথা বলতেছি যাদের চ্যানেলে ১ হাজারের উপরে Subscriber আছে, সাধারণত আজকের ভাষায় আমরা তাদের কে পুরনো ইউটুবার ধরব এবং আপনার চ্যানেলে যদি ১ হাজারের উপরে Subscribers থাকে তাহলে কিন্তু এই সেটিং টা আপনার জন্য কাজ করবে।

কিভাবে YouTube এ ভিডিও ভাইরাল করব?


তো ভিডিও ভাইরাল করতে হলে বা ভিডিও তে আগের তুলনায় বেশি ভিউস আনতে হলে আপনাকে অবশ্যই আজকের দেওয়া সেটিং গুলো অনুসরণ করতে হবে। এই সেটিং গুলো আপনার ভিডিও তে করলে আপনার ভিডিও ভাইরাল হওয়ার সম্ভবনা অনেক টাই বেড়ে যাবে। তো আজকের এই টপিকে আমরা ৩ টা সেটিং নিয়ে আলোচনা করব। যে সেটিং গুলো আপনারা Ignore করে থাকেন বা গুরুত্ব দেন না।


YouTube এর গুরুত্বপূর্ণ ৩ টা সেটিং দেখে নিন?


তো YouTube এর এই গুরুত্বপূর্ণ সেটিং গুলো আমরা ইউটিউব এ ভিডিও আপলোড করার পর যে ইডিট করে থাকি সেখানে গিয়ে করব। তো আপনারা প্রথমে Crome ব্রাউজার এর পিসি মোড অন করে বা পিসি দিয়ে YouTube এ প্রবেশ করুন। তারপর আপনি যেই ভিডিও তে বেশি ভিউস পেতে চান বা ভাইরাল করতে চান তার Edit অপশন এ যান। তো আমরা ভিডিও র এডিট সেকশন এ গিয়ে আমরা কিন্তু খুব বেশি এডিট করিনা। আমরা Just ভালো দেখে Tittle,Description,Thumbnail এবং Tag দিয়ে থাকি। তো আপনি একটু ভালোভাবে খেয়াল করলে দেখতে পারবেন যে ওখানে Advanced Setting নাম এ একটা অপশন রয়েছে। যেটা আমরা খুব একটা Care বা খেয়াল করিনা। কিন্তু এই অপশন টার মধ্যে রয়েছে অনেক গুলো গুরুত্বপূর্ণ সেটিং যা অনেক Secret এবং গুরুত্বপূর্ণ। এই সেটিং গুলো অনেকে জানেনা এবং করেনা বলে অনেক ভুল করে থাকে। আর গুরুত্বপূর্ণ সেটিং গুলো মিস করে থাকে। যার কারণে তাদের ভিডিও গুলো ভালো হওয়া সত্যেও বেশি ভিউস হয়না এবং ভাইরালও হয়না। তো কেনো ভিউস হয়না এটা সম্পর্কে বলি, ধরুন আপনার চ্যানেলে ১ লক্ষ বা ১০ হাজার Subscriber রয়েছে



কিন্তু আপনি হয়তো খেয়াল করে দেখছেন যে আপনার ভিডিও তে ভিউস আসে ১০০,৫০০ বা ১০০০ এরকম। এমন টা কিন্তু প্রায় সকলের সাথে হয়ে থাকে। তো আজকের এই সেটিং গুলো পরিবর্তন করে আপনার ভিডিও খুব ইজিলি আপনার সকল Subscriber দের কাছে পৌছাতে পারবেন। ফলে আপনার ভিডিও তাদের সামনে যাবে এবং তারা ভিডিও টা দেখবে। তো যাই হোক এখন আপনারা Advanced Setting এ ক্লিক করে দিন। তো এই অপশন টাতে আসার পর আমরা খুব বেশি কিন্তু পরিবর্তন করিনা। তো এখন থেকে ভিডিও আপলোড করার পর আমি যে সেটিং গুলোর কথা বলে দিবো সেই সেটিং গুলো অবশ্যই করে নিবেন। তাহলে আপনার ভিডিও তে আগের তুলনায় বেশি ভিউস আসবে। আসতেই হবে ১০০% গ্যারান্টি।

প্রথমত আমরা যখন ভিডিও আপলোড করি তখন আমরা ভিডিও ওর Language টা সিলেক্ট করিনা। এডভান্স সেকশন এ Video Language অপশন টার দিকে ফোকাস করুন। তো আমরা এটা মিস করে থাকি। আমরা ভাবি যে এ অপশন টা সিলেক্ট করে কি এমন হবে বা Language কোনো Matter করেনা। কিন্তু মনে করুন আমি একটা ভিডিও টার্গেট করছি বাংলাদেশের জন্য সেই ক্ষেত্রে আমি যদি সেখানে Language এর জায়গায় বাংলা না দেয় তাহলে কিন্তু ইউটিউব কখনোই বুঝতে পারবে না যে আপনার ভিডিওর Language টা Bangla নাকি অন্যকিছু। তো সেই ক্ষেত্রে আপনার ভিডিওর ভাষা যেটা সেটাই দিয়ে দিবেন, তো আমরা Maximum সময়ে আমরা ভিডিও গুলো সাধারণত বাংলা এবং ইংরেজি ভাষাতেই করে থাকি।

তো এবার আসি আমরা Recording Date অপশন টার দিকে। তো আপনারা হয়তো অনেকেই বলতে পারেন যে, ভাইয়া Recoding Date টা Matter করবে কেনো? কিন্তু এটা অনেক টাই Matter করে, যেমন আপনি একটা ভিডিও আজকে আপলোড করে আজকেই ইউটিউব এ আপলোড করলেন সেই ক্ষেত্রে কিন্তু Recoding Date টা না দিলে YouTube কখনোই বুঝতে পারবে না আপনি কবে ভিডিও টা Record করেছেন। আপনি একটা বিষয় খেয়াল করে দেখবেন, আপনি যখন ইউটিউব এ ভিডিও আপলোড করছেন তখন কিন্তু তেমন ভিউস আসছে না কিন্তু আপনি যখন Live Stream করেন, তখন কিন্তু তুলনামূলক ভাবে অনেক ভালো পরিমাণ ভিউস আসে। তো এখান থেকে ধারণা নিয়ে বলা যায় যে আপনি যত Up to Date বা Recently ভিডিও আপলোড করতে পারবেন, তাহলে আপনার ভিডিওর ভিউস এর পরিমাণ একটু হলেও বেড়ে যায়। তো সেক্ষেত্রে যেটা করবেন সেটা যদি ধরুন আজকে আপনি ভিডিও আপলোড করে থাকেন তাহলে আজকের Date টা সেখানে দিয়ে দিবেন। তাহলে ইউটিউব মনে করবে আপনার ভিডিও টা ফুল Up To Date। যেমন ধরুন আপনি ১০ বছর আগের একটা ভিডিও ১০ বছরের আগের Date দিয়ে আজকে ভিডিও টা আপলোড করলেন। তাহলে কেনো আপনার ভিডিও ইউটিউব Trending এ রাখবে বা ভাইরাল হবে। ইউটিউব কেনো ওটাতে ভিউস দিবে কেননা ওটা একটা পুরনো নিউজ তাইনা। তাহলে ইউটিউব কেনো বুঝতেছে এটা পুরনো নিউজ? কেননা আপনি Recoding Date টা দিচ্ছেন বলে। তো অবশ্যই Recoding যে Date টা রয়েছে তা অবশ্যই Recently টা দিবেন। তাহলে সবথেকে সুবিধা হবে।

তো এখন আপনারা চলে যাবেন সবচেয়ে নিচের অপশন মানে Allow Embedding এর নিচে যে একটা Other অপশন টা রয়েছে সেটার দিকে ফোকাস করবেন। তো এই অপশন থেকে আমরা যেটা বুঝতে পারি তা হলো যদি আপনি এই অপশন টিতে টিক না দিয়ে রাখেন তাহলে যা হবে যখনি আপনি ইউটিউব এ নতুন কোনো ভিডিও আপলোড করবেন, সেটার কোনো Notification আপনার Subscriber দের কাছে পৌছাবে না। তো এই অপশন টা এখন অন্য মাত্রায় চলে গেছে সেটা হলো যে এখন সাধারণত নোটিফিকেশন বা নিউজ ফিড বলেন এটা চলে আসছে ব্রাউজার ফিচারের মধ্যে। এখন ব্রাউজার থেকেও সকলে এখন নোটিফিকেশন এবং নিউজ ফিড পায়। তারপর ও যদি আপনার ভিডিও তে এই অপশন টা অন করে দিলে অনেক বেশি পরিমাণ ভিউস পাওয়া সম্ভব। এটা শুধুমাত্র প্রথম বারেই দিবেন। যখন আপনি ভিডিও আপলোড করবেন সাথে সাথে এই অপশন টাতে টিক দিয়ে নিবেন। একটা বিষয় ভেবে দেখুন যে আপনার যদি ১০ হাজার Subscriber হয়ে থাকে, ভিডিও আপলোড করলেন এবং Publish To Subscription অপশন অন করে দিলেন আর সর্বশেষে ভিডিও টা পাবলিক করে সেভ করে দিলেন তখন সাথে সাথে ১০ হাজার Subscriber এর কাছে ভিডিওর নোটিফিকেশন টা চলে যাবে। So বিষয় টা কিন্তু অনেক Amazing. তো যখন ১০ হাজার লোকের কাছে ভিডিও টা পৌঁছে যাবে তখন তুলনামূলক ভাবে বেশি ভিউস হবে আগের চেয়ে।



তো আপনারা সকলে এই গুরুত্বপূর্ণ সেটিং গুলো খেয়াল রাখবেন।


আজকের মতো এখানেই শেষ


আশা করি সবকিছু বুঝতে পারছেন। আপনাদের কোথাও কোনো সমস্যা হলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। ধন্যবাদ।

Post a Comment

0 Comments